শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০২৪
শিরোনামঃ
||দু’টি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে যুবক নিহত, আহত ৩||শৈলকুপায় দাদার লাশ দেখে ফেরার পথে ট্রাকের ধাকায় নাতি ছেলে নিহত||শৈলকুপায় কোটাবিরোধী আন্দোলনে মহাসড়ক অবরোধ, সংসদ সদস্যের গাড়ি ও আওয়ামী লীগ নেতার বাড়ী ভাংচুর||নড়াইল শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র পৌর মেয়র আনজুমান আরা সভাপতি নির্বাচিত||নড়াইলে মধুমতি নদী থেকে গলিত মরদেহ উদ্ধার||নড়াইলে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা সহায়তা প্রদান||মৌলভীবাজারে ইয়াবা, গাঁজা, চোলাই মদসহ আটক ৪||নড়াইল সরকারি মহিলা কলেজের ২০২৪-২০২৫ বর্ষের জন্য নবগঠিত শিক্ষক পরিষদের অভিষেক ও ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত||নড়াইলের স্মার্ট লোহাগড়া গড়ার লক্ষ্যে সৌন্দর্যবর্ধন কর্মসুচির উদ্বোধন||শ্রীমঙ্গলে নতুন এসি ল্যাণ্ড সালাউদ্দিন বিশ্বাসের যোগদান||শ্রীমঙ্গলে ‘কৃষক জিএপি সার্টিফিকেশন’ শীর্ষক দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ||নড়াইলে মাদক দ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তজার্তিক দিবস পালিত||শ্রীমঙ্গলে বিদেশি মদসহ এক মাদক কারবারি গ্রেফতার||ঢাকার বংশালে হরিজন পল্লীর বাসিন্দাদের কাউন্সিলর আউয়াল বাহিনীর বর্বর হামলা বন্ধের দাবিতে নড়াইলে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত||নড়াইলে চন্ডিবরপুর ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে চার প্রার্থীর প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন
Homeধর্মকত খ্রিস্টাব্দে মক্কা বিজয় হয়?

কত খ্রিস্টাব্দে মক্কা বিজয় হয়?

মক্কা বিজয় (ফাতহে মক্কা) ইসলামি ইতিহাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা, যা ৬৩০ খ্রিস্টাব্দে সংঘটিত হয়েছিল। এই বিজয় মুসলমানদের জন্য বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ, কারণ এটি ইসলাম ধর্মের প্রচার ও প্রতিষ্ঠায় একটি মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হয়। মক্কার বিজয়ের পটভূমি, প্রক্রিয়া এবং প্রভাব সম্পর্কে বিশদভাবে আলোচনা করা যাক।

পটভূমি

মক্কা বিজয়ের পটভূমি বোঝার জন্য আগে থেকে ঘটে যাওয়া কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার দিকে নজর দিতে হবে। নবী মুহাম্মদ (সা.) মক্কায় ইসলামের প্রচার শুরু করেন ৬১০ খ্রিস্টাব্দে। কিন্তু মক্কার কুরাইশ গোত্রের নেতারা ইসলামের প্রচারে বাধা দেয় এবং মুসলমানদের উপর নানা ধরনের নির্যাতন চালায়। ৬২২ খ্রিস্টাব্দে নবী মুহাম্মদ (সা.) এবং তার অনুসারীরা মদিনায় হিজরত করেন, যা ইসলামী বর্ষপঞ্জির সূচনা হিসেবেও পরিচিত।

হুদাইবিয়ার সন্ধি

৬২৮ খ্রিস্টাব্দে নবী মুহাম্মদ (সা.) মক্কার কুরাইশদের সঙ্গে হুদাইবিয়ার সন্ধি করেন, যা দশ বছরের জন্য যুদ্ধবিরতির একটি চুক্তি ছিল। কিন্তু এই চুক্তির একটি শর্ত ভঙ্গ করে কুরাইশদের মিত্র বনি বকর গোত্র, যারা মুসলমানদের মিত্র খুজাআ গোত্রের উপর আক্রমণ চালায়। এর ফলে, চুক্তি ভঙ্গ হয় এবং মুসলমানরা মক্কা অভিযানের সিদ্ধান্ত নেয়।

মক্কা বিজয়

৬৩০ খ্রিস্টাব্দে নবী মুহাম্মদ (সা.) প্রায় ১০,০০০ সৈন্য নিয়ে মক্কার দিকে অগ্রসর হন। মক্কার অধিবাসীরা এত বৃহৎ সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করতে সক্ষম ছিল না। মক্কার প্রবেশদ্বারে নবী মুহাম্মদ (সা.) নির্দেশ দেন যেন রক্তপাত না হয়। ফলে মক্কা প্রায় বিনা প্রতিরোধে বিজিত হয়। নবী মুহাম্মদ (সা.) মক্কায় প্রবেশ করে কাবা শরীফে প্রবেশ করেন এবং সেখানে থাকা মূর্তিগুলো ধ্বংস করেন, যা তাওহীদের (এক আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস) প্রতীক হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ছিল।

প্রভাব

মক্কা বিজয়ের ফলে ইসলামের প্রচার এবং প্রসার উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পায়। মক্কার নেতারা ইসলামের প্রতি সমর্থন জানান এবং নবী মুহাম্মদ (সা.) এর নেতৃত্বকে মেনে নেন। এই বিজয়ের পর মক্কা ইসলামের প্রধান ধর্মীয় কেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং এখানে হজ পালন বাধ্যতামূলক হয়ে ওঠে।

পরিশেষে

মক্কা বিজয় ইসলামী ইতিহাসে একটি যুগান্তকারী ঘটনা। এটি শুধু সামরিক বিজয় নয়, বরং একটি আধ্যাত্মিক বিজয়ও বটে। নবী মুহাম্মদ (সা.) এর নেতৃত্ব এবং তার উদার মনোভাব মক্কার অধিবাসীদের মধ্যে ইসলামের প্রতি বিশ্বাস ও আস্থা স্থাপন করতে সক্ষম হয়। মক্কা বিজয় ইসলাম ধর্মের প্রতিষ্ঠা ও প্রসারে একটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হিসেবে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। এই বিজয় মুসলমানদের জন্য একটি প্রেরণাদায়ক উদাহরণ এবং ইসলামের শান্তিপূর্ণ ও ন্যায়বিচারিক আদর্শের প্রতীক।

Stay Connected
16,985FansLike
2,458FollowersFollow
61,453SubscribersSubscribe
সর্বশেষ খবর
আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here