spot_img
সোমবার, জুন ১৭, ২০২৪
শিরোনামঃ
||কত খ্রিস্টাব্দে মক্কা বিজয় হয়?||ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠাতা কে?||ভারত কর্তৃক সম্প্রতি চাঁদে প্রেরিত চন্দ্রযানের নাম কি||ইনফর্মকে মনে হয় আমার গায়ের চামড়া -সেনাপ্রধান||নড়াইলের পেড়লীতে এবারও ঈদ করতে পারছেন না ২ শতাধিক পরিবার আজাদ হত্যা মামলা নিয়ে উত্তেজনা||ভারতীয় জনতা পার্টি||হাতুড়িপেটায় ব্যস্ত নড়াইলের কামার পাড়া||শ্রীমঙ্গলে কোরবানির জন্য প্রস্তুুত ১২ হাজার পশু||নড়াইলে মোটরসাইকেলের বেপরোয়া গতিতে প্রাণ গেল কিশোরের||সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস||নড়াইলে পুলিশ সদস্যের ‘বিশেষ অঙ্গ’ কেটে দেয়া সেই ডলির বিরুদ্ধে মামলা||নড়াইলে ঘেরের পাশে কিশোরের মরদেহ উদ্ধার||শ্রীমঙ্গলে ১৪৭ ভূমিহীন পরিবারের মাঝে নামজারি খতিয়ানের পর্চা বিতরন||প্রকাশ্যে ধূমপান একটি||বিটিএস-এর জিনকে জড়িয়ে ধরার সুযোগ পাবেন ১০০০ ভক্ত, কেন ও কিভাবে?
Homeআইন-অপরাধউপজেলা নির্বাচনের জের নড়াইলে সম্মিলনী প্রি-ক্যাডেট স্কুল দাহ্যপদার্থ দিয়ে পুড়িয়ে ফেলার চেষ্টা

উপজেলা নির্বাচনের জের নড়াইলে সম্মিলনী প্রি-ক্যাডেট স্কুল দাহ্যপদার্থ দিয়ে পুড়িয়ে ফেলার চেষ্টা

- Advertisement -spot_img

হাফিজুল নিলু, নড়াইল প্রতিনিধি:

২১ মে নড়াইল সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে মো.আজিজুর রহমান ভূইয়া আনারস প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হন। সদর উপজেলার চন্ডীবরপুর ইউনিয়নের গোয়ালবাথান গ্রামের সৈয়দ সামিউল হাসান সরফু আজিজ ভূইয়ার প্রতিপক্ষ তোফায়েল মাহামুদের ঘোড়া প্রতীকের পক্ষে  নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এতে আজিজ ভূইয়ার সমর্থকরা ক্ষিপ্ত হন।
সরেজমিন দেখা গেছে,স্থানীয় চালিতাতলা বাজার সংলগ্ন চন্ডিবরপুর ইউনিয়ন পরিষদের পেছনে  সৈয়দ সামিউল হাসানের প্রতিষ্ঠিত একটি সম্মিলনী প্রি-ক্যাডেট স্কুল রয়েছে। শুক্রবার (২৪মে) দিবাগত রাতে কে বা কারা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের টিনের ঘরের চারপাশে দার্হ্যপদার্থ দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। আজ শনিবার (২৫মে) সকালে স্কুলে গিয়ে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা বিষয়টি দেখতে পায়। এ ঘটনার প্রতিবাদে অভিভাবকসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।
স্কুলের শিক্ষক সৈয়দ আমিনুল ইসলাম বলেন,সকালে আমি প্রাইভেট পড়াতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আসি। এসেই দেখি প্রতিষ্ঠানের টিনের বেড়ার চারপাশে দার্হ্য পদার্থ দিয়ে ভিজিয়ে রাখা হয়েছে। আমি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মোসাম্মাৎ রিক্তা খানমকে ফোনে বিষয়টি জানাই।
প্রধান শিক্ষক রিক্তা খানম বলেন,আমার স্বামী সৈয়দ সামিউল হাসান, ২০০৯ সালে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি স্থাপন করেন। তিনি দাবি করেন,আমার স্বামী আনারস প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে  নির্বাচনী কাজ না করায় তার সমর্থকরা আমার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুড়িয়ে দিতে চেয়েছিল। তিনি বলেন,আমার প্রতিষ্ঠানের যাতে কোন ক্ষতি না হয় সে ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
জানতে চাইলে মো.আজিজুর রহমান ভূইয়া  বলেন নির্বাচনে জয় পরাজয় আছে। এ নিয়ে মন খারাপের কিছু নেই। নির্বাচনে কে কার পক্ষে কাজ করলো কিংবা করলো না তাতে কিছু মনে করি না। তবে একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দার্হ্যপদার্থ দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হবে এটা ঘৃণিত কাজ। যারা এর সঙ্গে জড়িত তাদেরকে আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি।
সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি  শুনেছি। পুলিশ পাঠিয়ে সরজমিনে তদন্ত করা হচ্ছে। পরবর্তীতে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা বা  বিশৃঙ্খলা না হয় সেদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নজর দারিতে রাখবে।
- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_img
Stay Connected
16,985FansLike
2,458FollowersFollow
61,453SubscribersSubscribe
সর্বশেষ খবর
আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here