spot_img
সোমবার, জুন ১৭, ২০২৪
শিরোনামঃ
||কত খ্রিস্টাব্দে মক্কা বিজয় হয়?||ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠাতা কে?||ভারত কর্তৃক সম্প্রতি চাঁদে প্রেরিত চন্দ্রযানের নাম কি||ইনফর্মকে মনে হয় আমার গায়ের চামড়া -সেনাপ্রধান||নড়াইলের পেড়লীতে এবারও ঈদ করতে পারছেন না ২ শতাধিক পরিবার আজাদ হত্যা মামলা নিয়ে উত্তেজনা||ভারতীয় জনতা পার্টি||হাতুড়িপেটায় ব্যস্ত নড়াইলের কামার পাড়া||শ্রীমঙ্গলে কোরবানির জন্য প্রস্তুুত ১২ হাজার পশু||নড়াইলে মোটরসাইকেলের বেপরোয়া গতিতে প্রাণ গেল কিশোরের||সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস||নড়াইলে পুলিশ সদস্যের ‘বিশেষ অঙ্গ’ কেটে দেয়া সেই ডলির বিরুদ্ধে মামলা||নড়াইলে ঘেরের পাশে কিশোরের মরদেহ উদ্ধার||শ্রীমঙ্গলে ১৪৭ ভূমিহীন পরিবারের মাঝে নামজারি খতিয়ানের পর্চা বিতরন||প্রকাশ্যে ধূমপান একটি||বিটিএস-এর জিনকে জড়িয়ে ধরার সুযোগ পাবেন ১০০০ ভক্ত, কেন ও কিভাবে?
Homeদেশ পরিচিতিকিরগিজস্তান

কিরগিজস্তান

- Advertisement -spot_img

### কিরগিজস্তান: একটি বিস্তৃত পরিচিতি

#### ব্যুৎপত্তি ও প্রাথমিক ইতিহাস
কিরগিজস্তানের নামের উৎস তুর্কি শব্দ “কিরগিজ,” যা “৪০টি গোত্রের” সমন্বয়ে গঠিত বলে মনে করা হয়। এটি কিংবদন্তি মহাকাব্য “মানাস”-এর ৪০টি উপজাতির কথাও স্মরণ করিয়ে দেয়। প্রাথমিকভাবে, কিরগিজ জনগোষ্ঠী আলতাই পর্বতমালা এবং দক্ষিণ সাইবেরিয়ার কাছাকাছি অঞ্চল থেকে উদ্ভূত হয়েছিল। চতুর্থ থেকে ষষ্ঠ শতাব্দীতে, কিরগিজ জনগণ মধ্য এশিয়ার তিয়ান শান পর্বত এবং ফারগানা উপত্যকায় স্থানান্তরিত হয়।

#### জনসংখ্যা ও ধর্ম
কিরগিজস্তানের জনসংখ্যা প্রায় ৬.৫ মিলিয়ন। প্রধান জাতিগোষ্ঠী হল কিরগিজ, যারা দেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৭০%। অন্যান্য উল্লেখযোগ্য জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে উজবেক, রুশ, এবং দুঙ্গান রয়েছে। কিরগিজস্তানের প্রধান ধর্ম ইসলাম, এবং দেশের প্রায় ৮০% মানুষ মুসলমান। এছাড়া, কিছু লোক খ্রিস্টান ধর্ম পালন করে, প্রধানত রুশ অর্থোডক্স চার্চের অনুসারী।

#### ভাষা
কিরগিজস্তানের সরকারি ভাষা হল কিরগিজ, যা একটি তুর্কিক ভাষা। রুশ ভাষাও ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয় এবং এটি দেশের দ্বিতীয় সরকারিভুক্ত ভাষা হিসেবে স্বীকৃত। কিরগিজ ভাষা কিরিলিক লিপিতে লেখা হয়।

#### ভূগোল
কিরগিজস্তান একটি স্থলবেষ্টিত দেশ, যা উত্তরে কাজাখস্তান, পশ্চিমে উজবেকিস্তান, দক্ষিণ-পশ্চিমে তাজিকিস্তান এবং পূর্বে চীন দ্বারা বেষ্টিত। দেশের বেশিরভাগ অংশ তিয়ান শান পর্বতশ্রেণী দ্বারা আবৃত, যা কিরগিজস্তানকে একটি পর্বতশ্রেণী বিশিষ্ট দেশ করে তুলেছে। ইসিক-কুল হ্রদ দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য।

#### রুশ বিজয়
১৮৭৬ সালে কিরগিজস্তান রুশ সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়। রুশ বিজয়ের পর, কিরগিজ জনগণ রুশ শাসনের অধীনে আসে এবং দেশটি রুশ সাম্রাজ্যের অংশ হিসেবে বিবেচিত হয়। ১৯২৪ সালে, কিরগিজস্তান সোভিয়েত সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রের অংশ হয়ে ওঠে।

#### স্বাধীনতা
সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর, কিরগিজস্তান ১৯৯১ সালের ৩১ আগস্ট স্বাধীনতা অর্জন করে। স্বাধীনতা লাভের পর, কিরগিজস্তান গণতান্ত্রিক ও অর্থনৈতিক সংস্কার চালু করে এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সদস্য হয়ে ওঠে।

#### রাজনৈতিক ব্যবস্থা ও প্রশাসনিক অঞ্চল
কিরগিজস্তান একটি গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র। দেশের রাষ্ট্রপতি হলেন প্রধান নির্বাহী, এবং সংসদ দ্বিমাত্রিক ব্যবস্থা নিয়ে গঠিত। সংসদীয় নির্বাচন প্রতি পাঁচ বছরে অনুষ্ঠিত হয়। কিরগিজস্তান সাতটি প্রশাসনিক অঞ্চলে বিভক্ত, যেগুলি হল: চুই, ইসিক-কুল, নারিন, তালাস, বাতকেন, ওশ এবং জালালাবাদ।

#### জলবায়ু
কিরগিজস্তানের জলবায়ু বৈচিত্র্যময়। নিম্নভূমি এলাকায় গ্রীষ্মকাল গরম এবং শুষ্ক, এবং শীতকাল ঠান্ডা। পর্বতশ্রেণীতে জলবায়ু ঠান্ডা এবং তুষারপূর্ণ। ইসিক-কুল হ্রদ অঞ্চলে জলবায়ু মৃদু, যা পর্যটকদের আকর্ষণ করে।

#### অর্থনীতি
কিরগিজস্তানের অর্থনীতি মূলত কৃষি, খনন এবং পর্যটনের উপর নির্ভরশীল। প্রধান রপ্তানি পণ্যগুলির মধ্যে সোনা, তুলা, এবং পশম রয়েছে। কৃষি খাতে প্রধানত গম, যব, এবং শাকসবজি চাষ করা হয়। পর্যটন শিল্পও ক্রমবর্ধমান ভূমিকা পালন করছে।

#### পর্যটন
কিরগিজস্তানের পর্যটন শিল্প দেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের উপর নির্ভরশীল। তিয়ান শান পর্বত, ইসিক-কুল হ্রদ, এবং সোনকুল হ্রদ পর্যটকদের জন্য প্রধান আকর্ষণ। অ্যাডভেঞ্চার পর্যটনের জন্য কিরগিজস্তান একটি আদর্শ স্থান। এখানে হাইকিং, ট্রেকিং, এবং স্কি করার সুযোগ রয়েছে। এছাড়া, বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী উৎসব এবং স্থানীয় হস্তশিল্প পর্যটকদের আকর্ষণ করে।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_img
Stay Connected
16,985FansLike
2,458FollowersFollow
61,453SubscribersSubscribe
সর্বশেষ খবর
আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here