spot_img
সোমবার, জুন ১৭, ২০২৪
শিরোনামঃ
||কত খ্রিস্টাব্দে মক্কা বিজয় হয়?||ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠাতা কে?||ভারত কর্তৃক সম্প্রতি চাঁদে প্রেরিত চন্দ্রযানের নাম কি||ইনফর্মকে মনে হয় আমার গায়ের চামড়া -সেনাপ্রধান||নড়াইলের পেড়লীতে এবারও ঈদ করতে পারছেন না ২ শতাধিক পরিবার আজাদ হত্যা মামলা নিয়ে উত্তেজনা||ভারতীয় জনতা পার্টি||হাতুড়িপেটায় ব্যস্ত নড়াইলের কামার পাড়া||শ্রীমঙ্গলে কোরবানির জন্য প্রস্তুুত ১২ হাজার পশু||নড়াইলে মোটরসাইকেলের বেপরোয়া গতিতে প্রাণ গেল কিশোরের||সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস||নড়াইলে পুলিশ সদস্যের ‘বিশেষ অঙ্গ’ কেটে দেয়া সেই ডলির বিরুদ্ধে মামলা||নড়াইলে ঘেরের পাশে কিশোরের মরদেহ উদ্ধার||শ্রীমঙ্গলে ১৪৭ ভূমিহীন পরিবারের মাঝে নামজারি খতিয়ানের পর্চা বিতরন||প্রকাশ্যে ধূমপান একটি||বিটিএস-এর জিনকে জড়িয়ে ধরার সুযোগ পাবেন ১০০০ ভক্ত, কেন ও কিভাবে?
Homeদেশ পরিচিতিফিলিস্তিন

ফিলিস্তিন

- Advertisement -spot_img

ফিলিস্তিন মধ্যপ্রাচ্যের একটি ঐতিহাসিক এবং সমসাময়িক অঞ্চল, যা বর্তমানে ইসরায়েল, পশ্চিম তীর, এবং গাজা উপত্যকাকে অন্তর্ভুক্ত করে। এটি এক জটিল ও সংবেদনশীল ভূখণ্ড, যা বহু বছর ধরে রাজনৈতিক, সামাজিক, এবং মানবিক সংকটের মধ্য দিয়ে অতিক্রান্ত হচ্ছে।

ঐতিহাসিক পটভূমি

ফিলিস্তিনের ইতিহাস অত্যন্ত পুরনো এবং জটিল। প্রাচীন কালে এই অঞ্চলটি কনানাইটস, ইব্রাহিমীয়, ফিলিস্তিনীয়, ইসরায়েলি, এবং রোমান সাম্রাজ্যের শাসনাধীন ছিল। খ্রিস্টপূর্ব প্রথম সহস্রাব্দে ইসরায়েল এবং জুদাহ রাজ্য প্রতিষ্ঠিত হয়। খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতকে ব্যাবিলনীয়রা ইসরায়েলি রাজ্য দখল করে, পরবর্তীতে পারস্য, গ্রিক, এবং রোমান সাম্রাজ্যের অংশ হয়ে যায়। খ্রিস্টপূর্ব ৭০ সালে রোমানরা জেরুজালেম ধ্বংস করে এবং ইহুদিদের বিতাড়িত করে, যা ডায়াসপোরা নামে পরিচিত।

আধুনিক ইতিহাস

ফিলিস্তিন আধুনিক ইতিহাসে প্রধানত ১৯১৭ সালের বালফোর ঘোষণা এবং ১৯৪৭ সালে জাতিসংঘের পরিকল্পনার পরে একটি গুরুতর পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যায়। ১৯৪৮ সালে ইসরায়েল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে ফিলিস্তিন প্রশ্নে সংঘাত বৃদ্ধি পায়। এই সময়েই প্রথম আরব-ইসরায়েল যুদ্ধ সংঘটিত হয়, যার ফলস্বরূপ অনেক ফিলিস্তিনি তাদের জন্মভূমি থেকে বিতাড়িত হয়ে শরণার্থী হয়ে যায়। পরবর্তীতে ১৯৬৭ সালের ছয় দিনের যুদ্ধে ইসরায়েল পশ্চিম তীর, গাজা উপত্যকা, এবং পূর্ব জেরুজালেম দখল করে।

রাজনৈতিক অবস্থা

ফিলিস্তিন বর্তমানে দুটি প্রধান অংশে বিভক্ত: পশ্চিম তীর (West Bank) এবং গাজা উপত্যকা (Gaza Strip)। পশ্চিম তীরের বেশিরভাগ অংশ ইসরায়েলি সামরিক এবং বেসামরিক কর্তৃপক্ষের অধীনে এবং ফিলিস্তিন স্বশাসন কর্তৃপক্ষ (Palestinian Authority) দ্বারা আংশিকভাবে পরিচালিত। গাজা উপত্যকা বর্তমানে হামাসের নিয়ন্ত্রণে, যা একটি ইসলামী রাজনৈতিক এবং সামরিক সংগঠন।

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল সংঘাত সমাধানের জন্য বিভিন্ন শান্তি প্রক্রিয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৯৯৩ সালে অসলো চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়, যা একটি স্বতন্ত্র ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠার পথ খুলেছিল। তবে এই চুক্তি কার্যকর করা এবং একটি স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে বহু বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছে। ফিলিস্তিন স্বশাসন কর্তৃপক্ষ এবং হামাসের মধ্যে রাজনৈতিক বিভাজনও একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এই বিভাজন ফিলিস্তিনি জনগণের জন্য একতার অভাব এবং তাদের স্বাধিকার আন্দোলনে বাধা সৃষ্টি করে।

মানবিক সংকট

ফিলিস্তিনে মানবিক সংকট অত্যন্ত গভীর। গাজা উপত্যকায় বসবাসরত জনগণ অবরোধের কারণে তীব্র খাদ্য, পানি, এবং ঔষধের সংকটে আছে। ইসরায়েলের সাথে সংঘাত এবং এর ফলস্বরূপ অবরোধের কারণে গাজার জনজীবন বিপর্যস্ত। পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি বসতি স্থাপন ও নিরাপত্তা প্রাচীর নির্মাণের ফলে ফিলিস্তিনিদের চলাচল এবং জীবনযাত্রা সীমাবদ্ধ হয়েছে। স্কুল, হাসপাতাল এবং অন্যান্য জনসেবামূলক প্রতিষ্ঠানগুলি প্রায়শই সংঘাতের শিকার হয়।

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ভূমিকা

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ফিলিস্তিন সমস্যার সমাধানে বিভিন্ন প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা শান্তি আলোচনা এবং মানবিক সহায়তায় ভূমিকা পালন করছে। তবে, ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনের মধ্যে চলমান সংঘাত এবং আস্থা সংকটের কারণে একটি স্থায়ী সমাধান এখনও পাওয়া যায়নি।

ভবিষ্যৎ দৃষ্টিভঙ্গি

ফিলিস্তিন প্রশ্ন একটি জটিল ও সংবেদনশীল বিষয়, যার সমাধান এখনও অমীমাংসিত। ফিলিস্তিনিরা একটি স্বতন্ত্র রাষ্ট্রের স্বপ্ন দেখে, যেখানে তারা স্বাধীনভাবে বসবাস করতে পারবে। তবে, এই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হলে রাজনৈতিক, সামাজিক, এবং অর্থনৈতিক পর্যায়ে বড় ধরনের পরিবর্তন প্রয়োজন। শান্তি এবং স্থিতিশীলতার জন্য উভয় পক্ষেরই সহনশীলতা, পারস্পরিক সম্মান এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের গঠনমূলক সহায়তা অপরিহার্য।

উপসংহার

ফিলিস্তিনের ইতিহাস ও বর্তমান অবস্থা প্রমাণ করে যে এই অঞ্চলটি বহু প্রতিকূলতা এবং সংগ্রামের মধ্য দিয়ে অতিক্রান্ত হয়েছে। ফিলিস্তিনিদের জীবনযাত্রা এবং ভবিষ্যৎ নির্ধারণে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। একটি শান্তিপূর্ণ এবং স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য উভয় পক্ষেরই সমঝোতা ও সহানুভূতির প্রয়োজন। শান্তি প্রক্রিয়া এবং মানবিক সহায়তার মাধ্যমে এই অঞ্চলের জনগণ একটি স্থায়ী ও মর্যাদাপূর্ণ জীবনযাত্রার আশা করতে পারে।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_img
Stay Connected
16,985FansLike
2,458FollowersFollow
61,453SubscribersSubscribe
সর্বশেষ খবর
আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here