spot_img
বুধবার, মে ২৯, ২০২৪
শিরোনামঃ
||বাঘায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সংঘাত ও সহিংসতা পরিহারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন||নড়াইলে মানব পাচারকারী চক্রের দুই সদস্য গোয়েন্দা পুলিশের হাতে আটক||বাঘায় সড়ক দুর্ঘটনায় সবজি ব্যবসায়ী নিহত||নড়াইলে মহাসড়কের পাশ থেকে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার||নড়াইল ২৯ বছরের পরে যুবলীগের সভাপতি মাসুম সম্পাদক খোকন||দীর্ঘ ২৯ বছর পর নড়াইল জেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত||শৈলকুপায় মাছ ধরা নিয়ে আসিফ নামের এক শিশুর মৃত্যু||শ্রীমঙ্গলে ঘুর্নিঝড় রেমাল’র প্রভাবে ২৮০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড||শ্রীমঙ্গলে ঘুর্নিঝড় রেমাল’র প্রভাবে অবিরাম বৃষ্টি : ২৪ ঘন্টায় ৫৮.৪ মিমি বৃষ্টিপাত রেকর্ড||নাটোর-৪ আসনের সংসদ সদস্যের বক্তব্যের প্রতিবাদে সাংবাদিকদের মানববন্ধন||উপজেলা নির্বাচনী জেরে নড়াইলে সহিংসতায় বাড়ি ভাঙচুর||নড়াইলে ভারতে পলাতক থাকা হত্যা মামলার আসামি জাকারিয়াকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ||লিচু খাওয়ার ৭টি উপকারিতা, আপনি জানলে অবাক হবেন।||পাকা ও মিষ্টি লিচু চেনার ১০ কৌশল||উপজেলা নির্বাচনের জের নড়াইলে সম্মিলনী প্রি-ক্যাডেট স্কুল দাহ্যপদার্থ দিয়ে পুড়িয়ে ফেলার চেষ্টা
Homeধর্মমূল্য বৃদ্ধি করে রোজাদারদের কষ্ট দেওয়া মহাপাপ

মূল্য বৃদ্ধি করে রোজাদারদের কষ্ট দেওয়া মহাপাপ

ডেস্ক রিপোর্ট

- Advertisement -spot_img

আত্মশুদ্ধি, নৈতিক প্রশিক্ষণ ও আত্মগঠনের মাস পবিত্র রমজানুল মোবারক। প্রতি বছর মাহে রমজান আসে ঈমানদার মুসলমানদের জীবনকে পরিশুদ্ধ এবং পাপমুক্ত করার জন্য।

রমজানের রোজা তাকওয়ার গুণ অর্জন এবং ইবাদতের অবারিত সুযোগ করে দেয়। অথচ এই পবিত্র রমজান মাসেও একশ্রেণির কালোবাজারি অসাধু ব্যবসায়ী বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য ও দ্রব্যসামগ্রীর কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করেছে।

যার ফলে এখন বাজারে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি লক্ষ করা যাচ্ছে। এতে রোজাদার সাধারণ দরিদ্র জনগোষ্ঠী, বিশেষ করে নিম্নবিত্ত ও স্বল্প আায়ের মানুষকে নিদারুণ ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। অথচ অবৈধ মজুদদারির মাধ্যমে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি করা ইসলামে নিষেধ।

প্রতি বছরই আমাদের দেশে রমজান মাস আসলেই একটা কৃত্রিম সংকট তৈরি করে সবধরণের জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি করার প্রবণতা খুব বেশি দেখা যায়। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী রমজান মাসেই টাকার পাহাড় গড়ার মওকা খোঁজে।

বিশেষ করে রমজানে রোজাদারদের ইফতার ও সেহরিতে ব্যবহৃত খাদ্য সামগ্রির দাম বাড়ানোর একটি প্রতিযোগিতা লক্ষ্য করা যায়। ফলে শহরের নির্ধারিত আয়ের মানুষের জীবনও কষ্টকর হয়ে পড়ে।

অথচ সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশই রমজান উপলক্ষে দ্রব্যমূল্যের সহজলভ্যতার জন্য প্রায় ৫০ শতাংশ ছাড় দিয়ে থাকে। কিন্তু বিষয়টি আমাদের দেশে ব্যতিক্রম।

রমজান মাসে বাণিজ্যের নামে ব্যক্তি স্বার্থে ফায়দা হাসিলের লক্ষ্যে নানা ধরনের বাণিজ্যিক সিন্ডিকেট তৈরি করে দুরাচার প্রকৃতির মানুষ রমজানকে টার্গেট করে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি সৃষ্টিতে অপপ্রয়াস চালায়। যার ফলে শুধু রোজাদার নন, অন্যান্য ধর্মাম্বলীরাও কষ্টে পতিত হন।

পবিত্র রমজানে দ্রব্যমূল্য অস্বাভাবিক বৃদ্ধি করে রোজাদারকে কষ্ট দেওয়া ইসলামে মহাপাপ।

রমজানের মত একটি ইবাদতের মাসও তাদের কাছে মুনাফা লাভের সুবর্ণ সুযোগ হয়ে আসে। অসাধুদের স্বেচ্ছাচারিতা সীমাহীন পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে।

এমন প্রবণতা কখনো ইসলাম সমর্থন করেনা, বরং এটা রমজানের শিক্ষার পরিপন্থি। অধিক লাভের আশায় মালামাল মজুদ করে চরম দামে বিক্রয়কারীর ওপর মহানবীর (সা.) অভিসম্পাত।

হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) এর যুগে একবার দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পেল। লোকেরা বললো, ইয়া রাসুলাল্লাহ! আপনি আমাদের জন্য দ্রব্যমূল্য নির্ধারণ করে দিন।

রাসুল (সা.) বললেন, মূলত আল্লাহ তায়ালাই দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণকারী, রিজিক সঙ্কীর্ণকর্তা, প্রশস্তকর্তা ও রিজিকদাতা। আমি আমার রবের সঙ্গে এভাবে সাক্ষাতের আশা রাখি যে, তোমাদের কারো যেন আমার বিরুদ্ধে রক্ত বা সম্পদ, কোনো বিষয়ে কোনোরূপ দাবি না থাকে। (তিরমিজি : ২৪৫)।

হজরত রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, যে ব্যক্তি মূল্য বৃদ্ধির অসদুদ্দেশ্যে মুসলমানদের লেনদেনে হস্তক্ষেপ করে, কেয়ামতের দিন আল্লাহ তায়ালা তাকে তাকে আগুনের পাহাড়ে উঠিয়ে শাস্তি দেবেন। (তাবরানি: ২১০)।

অন্য এক হাদিসে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, কোনো শহরবাসী কোনো গ্রামবাসীর পক্ষ হয়ে বিক্রি করবে না। মানুষকে তাদের স্বাভাবিক অবস্থায় ছেড়ে দাও, যেন আল্লাহতায়ালা তাদের একের মাধ্যমে অন্যের রিজিকের ব্যবস্থা করেন। (তিরমিজি : ২৬১৮)।

হজরত আবু হুরাইরা (রা.)থেকে বর্ণিত, নবী করীম (সা.) বলেন, শহরগামী কাফেলার লোকদের থেকে আগে আগে পণ্য কিনে নেয়ার জন্য শহরের বাইরে গিয়ে ওদের সঙ্গে মিলিত হওয়া যাবে না। কোনো ব্যক্তি এরুপ করলে, কাফেলার লোকেরা শহরে আসার পর এখতিয়ার থাকবে যে, বিক্রয় চূক্তিকে বহাল রাখবে নাকি রহিত করবে। (মুসলিম : ১৯৪১)।

হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেন, ‘ন্যায্যমূল্যে জিনিস সরবরাহকারী রিজিকপ্রাপ্ত আর মজুদ করে সংকট সৃষ্টিকারী অভিশপ্ত’। (বোখারি : ৩৭১২)।

হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেন, ‘মূল্যবৃদ্ধির উদ্দেশ্যে যে ব্যক্তি চল্লিশ দিন পর্যন্ত খাদ্যশস্য মজুদ করে রাখে সে ব্যক্তি আল্লাহর দায়িত্ব থেকে মুক্ত এবং তার প্রতি আল্লাহ অসন্তুষ্ট হন’। (মিশকাত :১৩১৬)।

কাজেই রমজানের পবিত্রতা বিরোধী সব উপায়-উপকরণের লাগাম টেনে ধরতে হবে। অসাধু ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করে আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।

অযৌক্তিকভাবে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণ চিহ্নিত করে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে। খাদ্যে ভেজাল, মজুদদারি, মুনাফাখোরি ও প্রতারণামূলক সব কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে। অশ্লীলতা, অপকার্যকলাপ বন্ধ করতে হবে।

সমাজের প্রত্যেককে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সচেতনভাবে করতে হবে দায়িত্ব পালন। অসাধু মহলের বিরুদ্ধে কঠোর-কার্যকর পদক্ষেপ ভিন্ন গত্যন্তর নেই। সর্বস্তরের রোজাদার এবং ভোক্তা সাধারণ মজুতদদারি ও মুনাফাখোরির দুঃসহ প্রবণতা থেকে বেরিয়ে আসাই রমজানের শিক্ষা।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_img
Stay Connected
16,985FansLike
2,458FollowersFollow
61,453SubscribersSubscribe
সর্বশেষ খবর
আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here